1. admin@sonalivor.net : Admin : Shaikh Iqbal Hossain
  2. m.amzadkhan@yahoo.com : M Amzad Khan : M Amzad Khan
বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০১:১২ পূর্বাহ্ন
বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০১:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গাজীপুরে গফরগাঁও কল্যাণ সমিতির ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত ‌কি ঘট‌তে যা‌চ্ছে ইমরান খা‌নের বিরু‌দ্ধে! গাজীপুরের ইউনাইটেড মডেল একাডেমীতে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত গাজীপুর মহানগর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসে সকল শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২ তম জন্মবার্ষিকীতে গাজীপুর জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের আনন্দ র‌্যালী অনুষ্ঠিত গাজীপু‌রে এ‌বি পা‌র্টির ২৮ সদস‌্য বি‌শিষ্ট যৌথ ওয়া‌র্কিং ক‌মি‌টি গ‌ঠিত ফখরুল-অলির বৈঠক, আসতে পারে নতুন ঘোষণা গাজীপুরে বাংলাদেশ মানব কল্যাণ এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ২১ শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রভাষাকে বাঁচাতে বাংলাভাষা উন্নয়ন বোর্ড অপরিহার্য : অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক প্রাথমিক বিদ্যালয় খুললেও বন্ধ থাকবে প্রাক-প্রাথমিক

পাটগ্রামের ঘোষপাড়া সার্বজনীন মন্দির ধর্মীয় সম্প্রীতির অনন্য নিদর্শন

সোনালী ভোর ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১
  • ১২৫ বার পঠিত

ফরিদুল ইসলাম রানা , লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি : লালমনিরহাটের পাটগ্রামের ৩নং জোংড়া ইউনিয়নের ঘোষপাড়া  সার্বজনীন দূর্গা মন্দির ১৯৭১ সালের পর থেকে ধর্মীয় সম্প্রীতির অনন্য নিদর্শন রেখে পূজা করে আসছেন বলে দেখা গেছে।
সরেজমিনে  গিয়ে দেখা যায়, হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা তাদের পূজা করছেন এবং মসজিদের আজানের সময় মাইক বন্ধ রেখে অন্যদের ক্ষতি না করে পূজা চালিয়ে যাচ্ছেন।
অন্যদিকে মুসলিম ধর্মালম্বীরা মসজিদের আজানে নামাজ আদায় করতে মসজিদে যাচ্ছেন। দেখে বুঝার উপায় নেই দুটি ভিন্ন  ধর্ম বিশ্বাসের মানুষ পাশাপাশি যার যার ধর্ম পালন করে আসছে। এ যেন এক ধর্মীয় সম্প্রীতির মিলন মেলা।
মন্দির কমিটির সভাপতি জগন্নাথ ঘোষ বলেন, ধর্মীয় রীতিনীতি ও সংস্কৃতির ভিন্নতা থাকলেও আমরা সবাই মানুষ, আমাদের সবার এক উদ্দেশ্য সেটি হলো, অন্যায় কাজ থেকে বিরত থাকা, ভালো কাজকে গ্রহণ করা।
মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় কুমার ঘোষ বলেন, ১৯৭২ সাল থেকে নির্বিঘ্নে আমরা আমাদের ধর্মীয় উৎসব পালন করে আসছি। এখানে মুসলিম-হিন্দু  এক অনন্য সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ। আমাদের এ মন্দিরটি নিজস্ব অর্থায়নে হয়েছিল। আমরা ২৫ টি পরিবার এখানে বসবাস করি। প্রতিবারেই ৫ দিন ব্যাপী পূজা পালন করা হয়। এখানে রাঁধা গোবিন্দ মন্দির রয়েছে ও নিত্য পুজা করা হয়। এখানে ৫০ বছরেও ধর্ম পালনে কোন সমস্যা হয়নি ।এবারের প্রতিমা ব্যয় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ধরা হয়েছে। আশাকরি সামনের বছর আরও বেশি ব্যয় করতে পারব। গতবার কম লোক সমাগম হলেও এবার মুখে মাস্কসহ সব নিয়ম মেনে লোকের সমাগম বেশি হবে বলে মনে করছি। আগামী পূজায় আমরা মন্দিরের ৫০ বছর পূর্তি পালন করব। উল্লেখ্য যে, এবারে পাটগ্রাম উপজেলায় ২৮ মন্দিরে পূজা পালন করবে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা।
সবশেষে ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © Sonali Vor
Themes customize By Theme Park BD